Friday , December 14 2018
Breaking News

কয়েক বছর আগে গায়ে কোটি কোটি দাগ নিয়ে জন্মেছিল এই শিশুটি, ২০ বছর পর তার বর্তমান লুক দেখলে আপনি চমকে যাবেন…!

কোটি দাগ নিয়ে জন্মেছিল এই শিশুটি- “সবাই বিভিন্ন রূপ নিয়ে জন্মায় এবং আমরা আমাদের গায়ের রং নিয়ে খুব খুশি হই”। এক যুবতী মেয়ে তার মহান ভাবনা আমাদের সাথে ভাগ করে নিয়েছেন। Ciera Swaringen ২০ বছরের এক মেয়ে যে রকওয়েল, উত্তর ক্যারোলিনাতে থাকে।

সে জন্মেছিল সাড়া শরীর জুড়ে শত শত আঁচিলের মতোজন্ম চিহ্ন নিয়ে । এটা বিরল চামড়ার অবস্থা যা প্রতি ৫ লক্ষের মধ্যে এক জন নিয়ে জন্মায়।সিয়েরার বাবা মা অন্য বাচ্চাদের মতো তাকেও স্কুলে ভর্তি করে দেয়, দুর্ভাগ্য যে সেখানে তাকে অন্য বাচ্চাদের থেকে ও বড় দের থেকে সহ্য করতে হয় নিষ্ঠুর বিদ্রূপ।

তার ডাক নাম ‘spotty dog’ দেওয়া হয়েছিল এবং কিছু অত্যাচারী অশিক্ষিত তাকে এই নামে তার মুখেরওপর ডাকতো। কিন্তু, সে ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছিল তার এই জন্ম চিহ্ন গুলির ওপর।

হাঁ, সে নিজেকে অন্য কিছু ভাবতো যা তার সাথে হওয়াউচিত ছিল না। সিয়েরা নিজেকে ঘৃণা করতনা তার এই জন্ম চিহ্ন গুলি নিয়ে। পরিবর্তে সে তার চিহ্নগুলি নিয়ে খুশির জীবন বেছে নিয়েছিলো।

#সিয়েরার সারা শরীরের ৭০% আবৃত ছিল এই জন্ম চিহ্ন→

কয়েক বছর আগে গায়ে কোটি কোটি দাগ নিয়ে জন্মেছিল এই শিশুটি, ২০ বছর পর তার বর্তমান লুক দেখলে আপনি চমকে যাবেন…!

সে বলে, সে কখনো বাজে ভাবে না তার এই জন্ম চিহ্ন নিয়ে কিন্তু তাকে সারা জীবন নির্মমভাবে পীড়ন করা হয়েছে এই গুলো নিয়ে। সেএসব নিয়ে ভাবতোনা এবং এই গুলোকে গ্রহণ করে সুখী জীবন যাপন করছে। আমাদের সামনে সিয়েরা এক বড় উদাহারন।

#সিয়েরা স্বীকার করে→

কয়েক বছর আগে গায়ে কোটি কোটি দাগ নিয়ে জন্মেছিল এই শিশুটি, ২০ বছর পর তার বর্তমান লুক দেখলে আপনি চমকে যাবেন…!

”একদিন আমি মনে করতে পারি যে স্কুল বাসে এক ছোট ছেলে আমাকে দেখে হেসে তিলকিত কুত্তা বলে।“

#সে আরও বলে→

কয়েক বছর আগে গায়ে কোটি কোটি দাগ নিয়ে জন্মেছিল এই শিশুটি, ২০ বছর পর তার বর্তমান লুক দেখলে আপনি চমকে যাবেন…!

“কিশোর ছেলেরা প্রথমেইআমাকে দেখে কিছু বলত। এতে আমার বিশ্বাস কমতে থাকে। আমি তখন ছোট ছিলাম, এটা আমাকে ভাবাতো যে আমি অন্যদের থেকে একদম আলাদা এবং আমার সাথে বাজে কিছু ঘটেছে।“

#সে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করে ছোট শহরে জন্মেছে বলে→

কয়েক বছর আগে গায়ে কোটি কোটি দাগ নিয়ে জন্মেছিল এই শিশুটি, ২০ বছর পর তার বর্তমান লুক দেখলে আপনি চমকে যাবেন…!

”আমি নিজেকে ভাগ্যবান মনে করি ছোট শহরে জন্মেছি বলে কারন, বেসির ভাগ মানুষই জানত আমার এই জন্ম চিহ্ন সুতরাং আমি কিছুটা স্বস্তিতে থাকতাম।“

#কিন্তু এই জিনিসটা কঠিন হয়ে উঠত যখন সে শহরের বাইরে যেত→

কয়েক বছর আগে গায়ে কোটি কোটি দাগ নিয়ে জন্মেছিল এই শিশুটি, ২০ বছর পর তার বর্তমান লুক দেখলে আপনি চমকে যাবেন…!

সারাক্ষণ আমি শিখতাম কিভাবে নেতিবাচক বক্তব্য থেকে দূরে থাকা যায়। মনে আছে যে বেশির ভাগ মানুষ আমার দিকে দেখত এবং বাজে কথাবলত এই নিয়ে কারন তারা এটা দেখতে অভ্যস্ত না।“

#সিয়েরা বিকিনি পরে তার ছবি ইন্টারনেটে দেয়, যেখানে তার সব জন্মচিহ্ন গুলি পরিষ্কার দেখা যায়→

কয়েক বছর আগে গায়ে কোটি কোটি দাগ নিয়ে জন্মেছিল এই শিশুটি, ২০ বছর পর তার বর্তমান লুক দেখলে আপনি চমকে যাবেন…!

অনেক নিগ্রহ হতে হয় তাকে এই ছবি দিয়ে ।

#সে বলে→

কয়েক বছর আগে গায়ে কোটি কোটি দাগ নিয়ে জন্মেছিল এই শিশুটি, ২০ বছর পর তার বর্তমান লুক দেখলে আপনি চমকে যাবেন…!

“আমার মা বলে যে আমার জন্ম চিহ্ন গুলি পরির চুম্বন।“
”আমার বাবা প্রথম মানুষ যে আমার পাশে দাঁড়ায় এবং রক্ষা করে সমস্ত বিপদ থেকে।

#সে নিজেকে গর্বিত মনে করে→

কয়েক বছর আগে গায়ে কোটি কোটি দাগ নিয়ে জন্মেছিল এই শিশুটি, ২০ বছর পর তার বর্তমান লুক দেখলে আপনি চমকে যাবেন…!

আমি গর্বিত আমি অন্যদের থেকে আলাদা, দিনের শেষে আমাদের সবারই কিছু আছে যা নরমাল না, সেটা ভেতরে হতে পারে বা বাইরে হতে পারে, জীবন হল সেটাই যা তুমি তৈরি করবে।“

#অনুপ্রেরণা→

কয়েক বছর আগে গায়ে কোটি কোটি দাগ নিয়ে জন্মেছিল এই শিশুটি, ২০ বছর পর তার বর্তমান লুক দেখলে আপনি চমকে যাবেন…!

সিয়েরা তার জীবন সুন্দর করে তুলেছে । সে সত্যিই আমাদের সবার কাছে অনুপ্রেরণা।শুধু সে নিজে না, সে অন্য সকল মেয়েদের অনুপ্রেরণা যারা বিভিন্ন সময় শিকার এই সব আক্রমণের। যা মন্তব্য সে ইন্সটাগ্রামের ছবিতে পেয়েছিল সেটাই প্রমান করে। আমরা তারিফ করি সিয়েরাকে তার এই কাজের জন্যে এবং ভবিষ্যৎ জীবন সুখের হয় সেই আসা রাখি।