Monday , October 15 2018
Breaking News

সন্তানকে কম্বলে মোড়ায় মা, আগুন দেয় পরকীয়া প্রেমিক

রকীয়া প্রেমিক – নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে পরকীয়ার জেরে অগ্নিদগ্ধ হয়ে শিশু নিহত হওয়ার ঘটনা আদালতে বর্ণনা করেছে পরকীয়া প্রেমিক মোমেন মিয়া (৩৫)। আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় মোমেন
জবানবন্দিতে পরকীয়া প্রেমিক মোমেন মিয়া জানায়, গভীর রাতে দুইজন মিলে সন্তানদের হত্যার পরিকল্পনা করে। সে অনুযায়ী শেফালী দুই সন্তানের গায়ে কম্বল মুড়িয়ে দেয়। আর আগুন দেয় মোমেন।
শনিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসানের আদালতে এ জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। গত ২২ এপ্রিল ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার আত্মীয়র বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। মোমেন মিয়া আড়াইহাজার উপজেলার উচিৎপুরা ইউনিয়নের বাড়ৈপাড়া এলাকার বিল্লাল হোসেনের ছেলে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আড়াইহাজার থানার উপ-পরিদর্শক আবুল কাশেম জানান, শেফালীর সঙ্গে পরকীয়ার কথা আদালতে স্বীকার করেছে মোমেন। সে জানায়, ১২ এপ্রিল রাতে তাকে বাড়ির পাশে দেখে ডেকে নিয়ে যায় শেফালী। দুইজন অন্যত্র চলে যেতে চায়। এ নিয়ে তাদের বাকবিতণ্ডা হয়। পরে গভীর রাতে দুইজন মিলে সন্তানদের হত্যার পরিকল্পনা করে। সে মোতাবেক শেফালী দুই সন্তানের গায়ে কম্বল মুড়িয়ে দেয়। আর আগুন দেয় মোমেন।

উপ-পরিদর্শক আবুল কাশেম জানান, ১৩ এপ্রিল আড়াইহাজারে উচিৎপুরা ইউনিয়নের বাড়ৈপাড়ায় লিবিয়া প্রবাসী আনোয়ার হোসেনের ঘরে অগ্নিকাণ্ডে স্কুলছাত্র হৃদয় হোসেন (৯) নিহত এবং তার ভাই জিহাদ হোসেন শিহাব (৭) দগ্ধ হয়।
এ ঘটনায় মা শেফালী আক্তারকে (৩০) গ্রেফতার করে পুলিশ। ঘটনার পর থেকেই পলাতক থাকে মোমেন। সে সম্পর্কে শেফালীর দেবর।

পরে শেফালীর শ্বশুর বিল্লাল হোসেন বাদী হয়ে আড়াইহাজার থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলায় শেফালী ও মোমেনকে আসামি করা হয়। এরই মধ্যে আদালতে শেফালী ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় এবং তার সঙ্গে মোমেনের পরকীয়ার কথা জানায়।

গত ১২ এপ্রিল রাতে শেফালীর ঘরে প্রবেশ করে মোমেন। সে গভীর রাতে তাকে ঘুমের ওষুধ খাওয়ায় এবং তার দুই ছেলের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ ঘটনা পরে মোমেনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।