Monday , December 17 2018
Breaking News

মৃত্যুর আগ মুহূর্ত কেমন হবে ?

মৃত্যুকে আমরা ভয় করি। ভয়হীন এই মানুষগুলো কি মৃত্যুর পরবর্তী জীবন নিয়ে কি খুবই আত্মবিশ্বাসী? নাকি তাদের কাছে সেগুলো মূল্যহীন? নাকিতারা চিন্তা করতেও আগ্রহী নন এবং বেখবর? জানি না আমরা।

জানি, প্রতিটি মানুষেরকে যেতে হবে৷ চলে গেছেন দাদাজান, চলে গেছেন দাদু। তারাও একদিন আমার মতো আধো শীতের সকালে হয়ত লেপ মুড়ি দিয়ে শুয়ে থেকে প্রিয়জনের হাতের উষ্ণতা পেতে পছন্দ করতেন। সকালে ঘুম থেকে উঠে জানালার পাশে কুসুম রোদে দাদুর স্নিগ্ধ তিলাওয়াত আমার কাছে মধুর চেয়ে মিষ্টি লাগতো। একদিন তিনিও চলে গেলেন তার অবধারিত গন্তব্যে।

এভাবেই চলে গেছেন ফুপিদের একজন, যার প্রতি ছিল আমার অনেক ভালোবাসা-শ্রদ্ধা। চলে গেছেন আমার শ্রদ্ধেয় ও প্রিয় উস্তাদদের কয়েকজন৷ চলে গেছে এক সহপাঠি যে একদিন আমারই মতো শেষ পরীক্ষা দিয়ে ফিরে এসে চিৎকার করে রুমে ঢুকে বন্ধুদের সাথে হাসতে হাসতে আনন্দ করেছিলো।

এমন করেই আখিরাতের পথে চলে গেছেন পরিচিত আরো অনেকের জীবন ইতোমধ্যেই৷ নানা অভিজ্ঞতার, নানা হিসেবের ভয়াবহ সময়গুলো কেমন করে তাদের পার হচ্ছে তা আল্লাহই ভালো জানেন৷

মৃত্যুর ফেরেশতা তার কর্মে খুবই নিপুণভাবে সময়ানুবর্তী৷ তালিকায় নাম এলে তিনি হাজির হন একদম নির্ধারিত সময়ে, নির্ধারিত মূহুর্তে। নির্দ্বিধায় রূহ নিয়ে মানুষের এ দুনিয়ার জীবনকে বিদায় করেন৷

অথচ মৃত্যু আসা মাত্রই আমরা এর পরিবর্তে দেখতে শুরু করবো ভিন্ন এক জগত৷ সবার স্মরণ থেকে হারিয়ে যেতে লাগবে অল্প ক’টা দিন মাত্র!

যারা শতবর্ষী, শেষ বয়সে মৃত্যুর অপেক্ষায় প্রহর গোনেন, তারা হঠাতই একদিন মৃত্যুর ফেরেশতার দেখা পান৷ রূহটা বেরিয়ে যায় কষ্ট দিয়ে, তীব্র কষ্ট৷ এরপরের সেই যাত্রা, রূহ উর্ধ্বাকাশে উঠতে থাকে এই আসমানে, ঐ আসমানে, শেষে সেই কবরে ফেরত আসে৷ মুনকার নাকীরের ভয়াবহ দর্শন আর প্রশ্নোত্তর পর্ব… পারবো কি? এরপরে কি চারপাশ থেকে আমাকে চেপে ফেলবে? আমি তো শান্তিতে ঘুমিয়েছি সারাটি জীবন৷ আমি কী পারবো কবরের চেপে ধরা সেই কষ্ট সহ্য করতে? আমি খুব একা থাকি নি কখনো৷ কবরে একা থাকতে হবে বছরের পর বছর৷ আমি কি পারবো সেই তীব্র একাকীত্ব সহ্য করতে?

চিন্তা করতে গিয়ে ফিরে আসি৷ পানাহ চাই আল্লাহর কাছে, আমাকে এই নেয়ামতভরা জীবনে যে কষ্টগুলো তিনি দেন নি, সমস্ত সময় যেভাবে সাহায্য করেছেন; আখিরাতেও তিনি আমাদের বিশ্বাসী ভাইবোনদের যেন সাহায্য করেন৷

ইনশাআল্লাহ, তিনি সাহায্য করবেন৷ জানি আমরা গুণাহগার, অকৃতজ্ঞ, না-শোকর বান্দা৷ কিন্তু যাঁর কাছে সাহায্য চাই, আশ্রয় চাই, তিনি তো সমস্ত ক্ষমতার অধিকারী, রাজাধিরাজ। তিনি তো ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু আল্লাহপাক৷ তিনি নিশ্চয়ই আমাদের অশ্রুগুলোকে বিফলে দেবেন না এবং আমাদের ক্ষমা করবেন৷ আমিন