Saturday , September 22 2018
Breaking News

বিমান দুর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়া এক যাত্রী এ কি বলল

ঢাকা থেকে ইউএস বাংলার বিমানটি স্বাভাবিকভাবেই উড়েছিল। কিন্তু কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে অবতরণের ঠিক আগে আগে বিমানটি ‘অদ্ভুত আচরণ’ শুরু করে বলে জানিয়েছেন বিমান দুর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়া এক যাত্রী।

এছাড়াও বিমানটিকে যেদিকে অবতরণের অনুমতি দেয়া হয়েছিল, তা অমান্য করে সেটি ভুল দিকে অবতরণের চেষ্টা করে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

সোমবার কাঠমান্ডুতে বিমান দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে যাওয়া যাত্রী বসন্ত বহরা কাঠমান্ডু পোস্টকে বলেন, ঢাকা থেকে তাদের বিমান স্বাভাবিকভাবেই উড়েছিল। কিন্তু ত্রিভুবন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টের কাছাকাছি এসে বিমানটি অদ্ভুত আচরণ শুরু করে।

রাসুইটা ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরসের কর্মচারী বহরা বলেন, ‘হঠাৎ বিমানটি প্রচণ্ডভাবে কাঁপতে শুরু করে এবং একসময় খুব জোরে একটা শব্দ হয়। আমি জানালার কাছে বসেছিলাম তাই জানালা ভেঙ্গে বেরিয়ে আসতে পেরেছি’।

এয়ারপোর্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে বিমানটি যেদিক থেকে উড়ে এসে অবতরণ করার কথা ছিল সেদিক থেকে না এসে, ভুল দিক থেকে এসে অবতরণের চেষ্টা করে।

ত্রিভুবন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টের জেনারেল ম্যানেজার রাজ কুমার ছেত্রি মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএনকে বলেন, ‘বিমানটিকে রানওয়ের দক্ষিণ দিক থেকে অবতরণ করার অনুমতি দেয়া হয়, কিন্তু এটি উত্তর দিক থেকে অবতরণ করে। কেন তারা দক্ষিণ দিক থেকে অবতরণ করেনি তা কর্তৃপক্ষ জানে না।’

নেপালের পুলিশ বলছে স্থানীয় সময় ২:১৫ মিনিটে অবতরণকালে বিমানটিতে আগুন ধরে যায়।

ফ্লাইটরাডার-টোয়েন্টিফোর জানিয়েছে বমবার্ডিয়ার কোম্পানির তৈরি টার্বোপ্রপ বিমানটি বিশ্বের অন্যতম আধুনিক উড়োজাহাজ।

বহরা বলেন, ‘বিমান থেকে বেরোনোর পর আমার আর কিছু মনে নেই। আমাকে কেউ একজন সিনামাঙ্গাল হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে আমার বন্ধুরা আমাকে নর্ভিক হাসপাতালে নিয়ে আসে। আমার মাথা আর পায়ে আঘাত লেগেছে। কিন্তু সৌভাগ্যক্রমে দুর্ঘটনার পরও বেঁচে গেছি।’